192555

মেয়ের রুমে অন্যরকম শব্দ শুনে বাবা যখন মেয়ের রুমে গেল, তখন ঘটল ভয়ঙ্কর কাণ্ড

একটা সময় ছিল যখন মানুষ অন্যের জন্যে নিজের জীবন দিতে তৈরি হয়ে যেত ।আর আজ কালকার দিনে নিজের রক্তের মানুষকে বিশ্বাস করা খুব কঠিন হয়ে গেছে ।

আর আমাদের সামনে এমন কিছু ঘটনা মাঝে মাঝে এসে পড়ে যা দেখার পর নিজের সম্পর্কের উপর বিশ্বাস করা খুব কঠিন হয়ে যায় ।আর বাবা আর মেয়ের সম্পর্কে নিয়ে কোন কিছু বলার দরকার থাকে না ।

এটি সব থেকে পবিত্র সম্পর্ক ।আর এই সম্পর্ক সব থেকে শক্তি শালী সম্পর্ক ।আর একজন বাবা তার মেয়ের জন্যে সব কিছু করতে রাজি ।

আর আজকাল কার দিনে একজন মেয়ে তার বাবার সাথে এমন কাজ করতে পারে যা জানার পর বিশ্বাস হবে না । আজ কালকার এই কলিযুগে একজন মেয়ে তার বাবার সাথে যা কাজ করল জানলে আপনি তা বিশ্বাস করতে পারবেন না ।

ভারতের নইডা আট্টাতে এক মেয়ে আর তার বয়ফ্রেন্ড মিলে নিজের বাবা কে মেরে ফেলল ।

আর এই সব কিছু আজ আমরা আপনাদের বলব ।রবিবার মেয়ের বাবাকে খুব খারাপ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল ।আর সোমবার তার চিকিতসা করার সময় তার মৃত্যু হয়ে যায় ।

আর তার মারা যাবার পর তার স্ত্রী তার নিজের মেয়ে এবং তার বয়ফ্রেন্ডের বিরুদ্ধে পুলিশে কেজ করে । ভারতের উত্তরপ্রদেশের বস্তী নামক জেলায় বিশ্বনাথ সাহু পরিবার নিয়ে বাস করত।

বিশ্বনাথ বাবু বাড়ির ছাদ ফেলে পড়ে যায় । তারপর তারদের পাশের বাড়ির লোকের সহযোগিতায় দিল্লির একটি হাসপাতেলে ভর্তি করেছিল ।

তার সোমবার মৃত্যু হয়ে যায় । তার স্ত্রী পুলিশের কাছে গিয়ে মামলা করে এবং তিনি জানান যে ভোর ৪টার সময় যখন তার স্বামী নিজের মেয়ের রুম থেকে আজব শব্দ শুনতে পান, তারপর তার রুমে যান ।

শব্দ শুনে যখন বিশ্বনাথ তাদের রুমে গেল দেখল তার মেয়ের বয়ফ্রেন্ড ধরমেন্দ্র তার মেয়ের রুমে ছিল এবং তারা দুজনে আপত্তিজনক অবস্থায় ছিল ।

মেয়েকে এই অবস্থায় দেখে প্রতিবাদ করলে ধর্মেন্দ্র তাকে মারতে শুরু করে এবং ওনার মেয়েও। দুজনে মিলে যখন তাকে মারছিল তখন বিশ্বনাথ ৩ তলা থেকে নীচে পড়ে যায় ।

তারপর তারদের পাশের বাড়ির লোকের সহযোগিতায় দিল্লির একটি হাসপাতেলে ভর্তি করেছিল ।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *