346714

অবশেষে লাদাখ সীমান্তে শান্তি ফেরাতে একমত ভারত-চীন

লাদাখ সীমান্তে গত কয়েক মাস ধরে চলা চরম উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণে একমত হয়েছে ভারত ও চীন। ভারতীয় সংবাদ সংস্থা এএনআই জানায়, শুক্রবার (৬ নভেম্বর) কোর কমান্ডার স্তরের অষ্টম দফার বৈঠকে প্যাংগং হ্রদলাগোয়া অঞ্চলে ‘মুখোমুখি অবস্থান থেকে সেনা পেছানো’ (ডিসএনগেজমেন্ট) এবং ‘সেনা সংখ্যা কমানো’ (ডিএসক্যালেশন) সংক্রান্ত তিনটি পদক্ষেপের বিষয়ে ‘ইতিবাচক আলোচনা’ হয়েছে।

প্রকাশিত খবরে বলা হয়, গত এপ্রিল-মে মাসের আগের অবস্থানে ফিরে যাওয়ার বিষয়ে দু’দেশের প্রতিনিধিরা বৈঠকে একমত হয়েছেন। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে প্যাংগং এলাকায় ডিসএনগেজমেন্ট প্রক্রিয়া শুরু সিদ্ধান্তও নেন তারা। পূর্ব লাদাখের ওই এলাকায় দুই দেশের সেনাবাহিনী এখন ট্যাংক, সাঁজোয়া গাড়িসহ (ইনফ্যান্ট্রি ফাইটিং ভেহিকল) নানা ভারী সামরিক সরঞ্জাম নিয়ে মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। প্রথম পর্যায়ে সেগুলো পিছিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

দ্বিতীয় পর্যায়ের পদক্ষেপের মূল বিষয়, প্যাংগং হ্রদের উত্তর তীরে ডিএসক্যালেশন প্রক্রিয়া। একটি সূত্র উদ্ধৃত করে সংবাদ সংস্থার দাবি, সেখান থেকে প্রতিদিন ৩০ শতাংশ করে সেনা সংখ্যা কমানোর বিষয়ে সম্মত হয়েছে দুপক্ষ। আলোচনায় স্থির হয়েছে, ভারতীয় সেনাবাহিনী তাদের ধন সিংহ থাপা পোস্ট লাগোয়া উঁচু অবস্থানে থাকবে। চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) ফিঙ্গার এরিয়া-৮-এর কিছুটা পূর্বে সরে যাবে। প্রসঙ্গত, প্যাংগং হ্রদের উত্তরে ফিঙ্গার-৫ থেকে ফিঙ্গার-৮ পর্যন্ত এলাকায় ভারতীয় সেনা যাতে আগের মতো টহল দিতে পারে, সেই দাবি শুক্রবারের বৈঠকে। এপ্রিল পর্যন্ত ওই পথে টহল দিত ভারতীয় সেনা। কিন্তু এরপর চীনা সেনা হ্রদের তীর বরাবর ফিঙ্গার-৫ পেরিয়ে এগিয়ে আসে।

তৃতীয় পর্যায়ে ‘সঙ্ঘাতের নয়া ক্ষেত্র’, প্যাগংয়ের দক্ষিণ তীরের বিভিন্ন এলাকা থেকে সেনা পেছানোর বিষয়ে ঐকমত্য হয়েছে বলে ওই খবরে দাবি।

গত শুক্রবার এলএসির চুসুল লাগোয়া মলডোয় অষ্টম পর্যায়ের বৈঠকে প্রথম বার ভারতের হয়ে বৈঠকে প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন দেশটির সেনাবাহিনী ১৪ নম্বর কোরের নতুন কমান্ডার, লেফটেন্যান্ট জেনারেল পি জি কে মেনন। চীনের সঙ্গে এর আগের সাত বার হওয়া এই বৈঠকে নেতৃত্ব দিয়েছেন মেননের পূর্বসূরি লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরেন্দ্র সিংহ। সম্প্রতি হরেন্দ্রকে বদলি করা হয়েছে। গত ১৪ অক্টোবর সপ্তম দফার বৈঠকে হরেন্দ্রর সহকারী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মেনন।

সূত্র: আনন্দবাজার

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *