355448

মামুনুল হক, আজহারী ও আহমাদুল্লাহর কাছে খোলা চিঠি

করোনাভাইরাসের ভয়ঙ্কর আঘাত মোকাবিলায় গত বছর থেকে দেশে জনগণের যে আগ্রহ ছিল, বিগত কয়েক মাসে তা একেবারেই চোখে পড়েনি। সঠিক নিয়মে সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনাও পালন করা হচ্ছে না।

এর মধ্যে আজ শনিবার সারাদেশে ফের একবার লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। ৫ এপ্রিল থেকে ১২ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউনের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে জনসচেতনা বাড়াতে দেশের প্রথম সারির তিনজন আলেমের কাছে খোলা চিঠি লিখেছেন লেখক, উপস্থাপক আসিফ এন্তাজ রবি।

মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা মিজানুর রহমান আজহারী ও শায়খ আহমাদুল্লাহ প্রতি চিঠিতে দেশের জনগণকে এই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিকে যথানিয়মে মোকাবিলা করার নির্দেশ দিতে আহ্বান জানিয়েছেন আসিফ এন্তাজ। শনিবার দুপুর পৌণে ১২টার দিকে নিজের ভ্যরিফায়েড ফেসবুকে মামুনুল হক, আজহারী ও শায়খ আহমাদুল্লাহ বরাবর চিঠিটি লেখেন আসিফ।

আমাদের সময় অনলাইন পাঠকদের জন্য চিঠিটি হুবহু তুলে ধরা হলো-

প্রিয়
শায়খ মিজানুর রহমান আজহারী
শায়খ মুহাম্মদ মামুনুল হক
শায়খ আহমাদুল্লাহ,

আমার সালাম এবং ভালবাসা নিবেন। আপনারা নিজেরা খুব ভাল করে জানেন, আল্লাহ আপনাদের একটি ক্ষমতা দিয়েছেন। দেশের মানুষ আপনাদের কথা শোনে। আপনারা যাই বলেন, মানুষ সেটি মেনে চলার চেষ্টা করে। এটি আল্লাহ পাক প্রদত্ত একটি বিশেষ নেয়ামত। যে কথা বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানী, মন্ত্রী, মিনিষ্টার বললে, মানুষ শুনবে না, সে কথা আপনারা বললে মানুষ শুনবে।

সারা পৃথিবী করোনার কারণে দুর্বিসহ অবস্থার মধ্যে আছে। বিশেষ করে, গত কয়েক দিনে বাংলাদেশের অবস্থা খুব শোচনীয় পর্যায়ে গিয়েছে। হাসপাতালগুলোতে জায়গা নেই। রোগী নিয়ে মানুষ এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটছে। ডাঙ্গায় তোলা মাছ যেমন ছটফট করে মরে, তেমনি মানুষ শ্বাসকষ্টে এম্বুলেন্সে মারা যাচ্ছে। এর পিছনে হয়তো অনেক কারণ আছে। তবে মূল কারণ: মানুষের অসচেতনতা। সারা পৃথিবীর বাঘা বাঘা বিজ্ঞানীরা নানান পরামর্শ দিচ্ছেন। ডাক্তাররাও অনুনয় করছেন। কিন্তু তাদের পরামর্শ আমরা মানছি না।

এ কথা বলতে দ্বিধা নেই, বাংলাদেশের মানুষ আপনাদের কথা আগ্রহ নিয়ে শোনে। কেবল শোনে না, তারা সেটি অক্ষরে অক্ষরে পালন করে। আপনারা তিনজন কী একই সাথে একটি কথা বলতে পারেন না, যাতে মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে। একমাত্র আপনারা নির্দেশ দিলেই বাংলাদেশের বিপুল সংখ্যক মানুষ সেটি পালন করবে।

আমি একজন সামান্য লেখক। আমার পথ এবং আপনাদের তরিকা আলাদা। কিন্তু দিনশেষে আমরা সবাই মানুষ, সবাই বাংলাদেশের নাগরিক। এই একটি বিষয়ে আমরা কী একসাথে কাজ করতে পারি না? মানুষকে বলতে পারি না, আপনারা অযথা ঘরের বাইরে যাবেন না, হাত পরিষ্কার রাখবেন, মাস্ক পরবেন? পৃথিবীর সবচেয়ে সবচেয়ে বড় দুর্যোগে আপনারা যদি জোড়ালো ভূমিকা না রাখেন, এই নালিশ আমরা কার কাছে দেবো?

আপনাদের তিনজনের প্রতি আমার বিনীত অনুরোধ , আসুন, একটা টিম করি। সেই টিমে আপনারা থাকুন, ডাক্তার থাকুন, বিশেষজ্ঞ থাকুন। এই টিমের কাজ হবে _ জনসচেতনতা তৈরি করা।

করোনার মোকাবেলার জন্য অনেক টিকা বাজারে এসেছে। এসেছে নানান ওষুধ। তবে সবচেয়ে কার্যকরী যে দাওয়াই, সেটির নাম জনসচেতনতা। একমাত্র মানুষ যদি সচেতন হয়, তাহলে করোনা মোকাবেলা করা যাবে। মানুষের হেদায়ত হলে আল্লাহ আমাদের রহম করবেন।

আপনাদের তিনজনের কাছে আমার ফরিয়াদ, প্লিজ আপনারা এক যোগ করোনার বিরুদ্ধে জন সচেতনা তৈরিতে কার্যকর ভূমিকা নিন।

অশেষ শ্রদ্ধা।
বিনীত নিবেদক
আশীফ এন্তাজ রবি।

 

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *