350336

গবাদিপশু জবাইয়ের আগে বেহুঁশ করার পক্ষে ইউরোপীয় আদালত

ইউরোপীয় জাস্টিস কোর্ট জানিয়েছেন, জোটভুক্ত দেশগুলো চাইলে গবাদিপশু জবাইয়ের আগে অচেতন করার বিধান জারি করতে পারে। আদালতের এমন রায়ে ধর্মীয় স্বাধীনতা খর্ব হবে বলে ইতোমধ্যে সতর্ক করেছে মুসলমান এবং ইহুদিদের সংগঠনগুলো।

বেলজিয়ামের ফ্লেমিশ অঞ্চলের প্রাণী অধিকার সংগঠন স্তন্যপায়ী গবাদিপশু জবাইয়ের আগে অচেতন করার দাবি জানিয়ে আবেদন করে। অচেতন করা ছাড়া গবাদিপশু জবাই নিষিদ্ধের দাবি জানায়। বৃহস্পতিবার আদালত সংগঠনটির দাবির পক্ষে রায় দেন।

‘আদালত এ সিদ্ধান্ত উপনীত হয়েছে যে, যে পদক্ষেপগুলো নেওয়া হয়েছে তাদের প্রাণী অধিকার সংগঠনের দাবি এবং ইহুদি এবং মুসলমানদের ধর্মীয় স্বাধীনতা উভয় বজায় থাকে।’

বেলজিয়ামের ফ্ল্যান্ডার্স অঞ্চলের গভর্নর ২০১৭ সালে একটি নির্দেশ জারি করেন যে, গবাদিপশু জবাইয়ের আগে অবশ্যই তা বেহুঁশ করতে হবে। ২০১৯ সাল থেকে ওই অঞ্চলে নির্দেশনাটি কার্যকর হয়।

প্রাণী অধিকার সংগঠন বক্তব্য, বেহুঁশ করে জবাই করলে গবাদিপশুর কষ্ট কম হবে। মুসলমানরা বলছে, এটা তাদের হালাল রীতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক। ইহুদিদের জন্য যা বৈধ তাকে কোশার বলে। তাদের দাবি, বৈধ প্রাণী জবাই করে খাওয়ার বিধান।

মুসলমান এবং ইহুদিদের ধর্মমতে মাংস খাওয়ার জন্য বৈধ জীবিত প্রাণীকে জবাই করতে হয়। প্রাণী অধিকার কর্মীদের দাবি তাদের ধর্মীয় বিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

ইহুদি এবং মুসলমানরা ইউরোপী আদালতের কাছে আহ্বান জানিয়েছে, অধিকারকর্মীদের দাবি তাদের ঐতিহ্য এবং রীতির ওপর আঘাত। ধর্মীয় স্বাধীনতার বিষয়কে গুরুত্ব দেওয়ারও আহ্বান জানায় তারা।

বেলজিয়ামে ইহুদিদের সংগঠন আমব্রেলা আদালতের রায়ের নিন্দা জানিয়েছে। বলেছে, এটি গণতন্ত্রের পরিপন্থী। সংখ্যালঘুদের অধিকারকে সম্মান জানানো হয়নি।

বেলজিয়াম ফেডারেশন অব জেউইশ অর্গানাইজেশনের প্রধান ইহান বেনিজির বলেন, লড়াই চলবে। আইনি অধিকারের প্রতিটি ধাপ মোকাবিলা করা ছাড়া আমরা হার মানব না। এখনো সে পর্যায় আসেনি।

ইউরোপীয় জেউইশ অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান রাব্বি মেনাচেম মারগোলিন বলেন, ইউরোপীয় ইহুদিদের জন্য এটি কালোদিন।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, ইউরোপীয় ইহুদিদের জন্য ভয়াবহ বার্তা এটি। ইহুদি এবং তাদের ধর্মের চর্চাকে এখানে স্বাগত জানানো হচ্ছে না। ইউরোপীয় নাগরিকদের মৌলিক অধিকার অস্বীকার করা হয়েছে।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *