345829

পিপাসায় কাতর যে কোনো প্রাণীকে পানি পান করানোও সাওয়াব

ভালো কাজ মানুষকে কল্যাণের পথ দেখায়। প্রচণ্ড গরমে শুধু মানুষ নয় সৃষ্টির সব জীবই পিপাসায় কাতর। ইচ্ছা করলেই এ গরমে পানি পান করানোর মাধ্যমে সাওয়াব লাভ করতে পারে যে কেউ।

শুধু মানুষকে পানি পান করালেই সাওয়াব হবে এমন নয়; বরং পশু-পাখিকে পানি পান করানোতেও রয়েছে সাওয়াব ও কল্যাণ। হাদিসে পাকে সাহাবাদের জিজ্ঞাসায় প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এমন কথাই জানালেন।

আল্লাহ তাআলা ভালো কাজের সহযোগীকে ভালোকাজের কর্তা হিসেবে আখ্যায়িত করেন। আবার যে ব্যক্তি খারাপ কাজের সহযোগী তাকে খারাপ কাজের কর্তা হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। তাই মানুষের উচিত ভালো ও কল্যাণকর কাজের সহযোগী হওয়া। হাদিসে এসেছে-

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, এক ব্যক্তি রাস্তা দিয়ে চলাচলের সময় প্রচণ্ড গরম অনুভব করছিল। কিছুক্ষণের মধ্যেই (পথে) একটা কুয়া পেলো এবং তার ভেতর নেমে পানি পান করল। অতঃপর (কুয়া থেকে) বেরিয়ে এলো। ওই সময় সে দেখল, একটি কুকুর পিপাসায় হাঁপাচ্ছে এবং মাটি চেটে খাচ্ছে।

লোকটি মনে মনে ভাবলো, পিপাসায় আমার যেমন অবস্থা হয়েছিল, এ কুকুরটিরও সেরূপ অবস্থা হয়েছে। অতঃপর সে (আবার) কুয়ার মধ্যে নামল এবং নিজের মোজা ভরে পানি নিল এবং তার মোজাটা মুখ দিয়ে চেপে ধরে পানি নিয়ে ওঠে এলো এবং কুকুরকে পানি পান করাল।

আল্লাহ তাআলা তার এ কাজের এতোটা কদর করলেন যে, তার সব গোনাহ ক্ষমা করে দিলেন। উপস্থিত সাহাবগণ বললেন, হে আল্লাহর রাসুল! পশুর উপকার করলেও কি আমাদের সাওয়াব হয়?

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, প্রত্যেক আদ্র কলিজাধারীর (জীবন্ত প্রাণীর) উপকার করলে সাওয়াব হয়।’ (বুখারি, মুসলিম, আবু দাউদ, ইবনে হিব্বান)

অন্য বর্ণনায়া এসেছে, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘কেউ পানির উৎস খনন করলে তা থেকে আদ্র কলিজাধারী জ্বিন, ইনসান এবং পাখি পানি পান করলে এর বিনিময়ে আল্লাহ তাকে কেয়ামতের দিন সাওয়াব দান করবেন।’ (বুখারি, ইবনে খযায়মা)

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘পানি পান করানোর চেয়ে অধিক সাওয়াব অন্য কোনো সাদাকাতে নেই।’ (বায়হাকি)

নিঃসন্দেহে মানুষসহ পিপাসার্ত যে কোনো প্রাণীকে পানি পান করানো ভালো কাজ। পানি করানোর মতো সহজে যে কোনো ভালো কাজের প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠতে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মানুষকে নসিহত পেশ করে বলেন-

‘যে ব্যক্তি কোনো ভালো কাজের প্রচলন ঘটাবে এবং অন্যরা তা অনুসরণ করবে, তবে তার জন্য এর প্রতিদান লেখা হবে এবং অনুসরণকারীর জন্যও অনুরূপ নেকি লেখা হবে। অথচ তাদের প্রতিদান থেকে সামান্যও কমানো হবে না। আবার যে ব্যক্তি কোনো পাপ কাজের প্রচল ঘটাবে এবং অন্যরা সেটার অনুসরণও করবে তবে সে পাপের অন্য প্রচলনকারীর আমলনামায় তা যুক্ত হতে থাকবে। অথচ যে পাপ করবে তার পাপের সামান্য অংশও তাতে হ্রাস করা হবে না।’ (ইবনে মাজাহ, ইবনে হিব্বান)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে সব সময় ভালো কাজ করার, ভালো কাজের সহযোগিতা করার তাওফিক দান করুন। শুধু মানুষ নয়, সৃষ্টির প্রতি দয়া প্রদর্শনের মাধ্যমে মানবতার কল্যাণে কাজ করে সাওয়াব লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *