323519

মেয়েকে গভীর রাতে ৫ ধ’র্ষকে’র হাতে তুলে দিলেন মা

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলায় এক গৃহবধূ (৩২) সং’ঘবদ্ধধ’র্ষণের শিকার হয়েছেন। সং’ঘবদ্ধধ’র্ষণে সহযোগিতা করায় গৃহবধূর মা ও ধ’র্ষ’ক সাবেক দুই স্বামীকে গ্রে’ফতা’র করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে ওই গৃহবধূ বাদী হয়ে ধ’র্ষণে’র অ’ভিযো’গে মাসহ ছয়জনকে আসামি করে সখীপুর থানায় মা’ম’লা করলে রাতেই তিনজনকে গ্রে’ফ’তার করে পুলিশ। বুধবার সকালে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য গৃহবধূকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

গ্রে’ফতারকৃ’ত হলেন- কাকরাজান ইউনিয়নের তৈলধরা গ্রামের বাসিন্দা সং’ঘবদ্ধধ’র্ষণের শিকার গৃহবধূর মা, প্রথম স্বামী ও সখীপুর পৌর এলাকার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা আবদুল কাদের (৫৫) এবং কচুয়া গ্রামের বাসিন্দা দ্বিতীয় স্বামী আবদুর রহমান (৩৯)। বুধবার তাদের কা’রাগারে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে মেয়েকে কবিরাজ বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে উপজেলার কীর্ত্তণখোলা ধুমখালি বেইলি ব্রিজের কাছে নিয়ে যান মা। সেখানে মোটরসাইকেলযোগে হেলমেট পরা দুই যুবক এলে মেয়েকে তাদের হাতে তুলে দেন মা।

পরে পৌর শহরের একটি পরিত্যক্ত দোকানে আ’টকে রেখে সাবেক স্বামী আবদুল কাদের ও আবদুর রহমানসহ পাঁচজন মিলে পালাক্রমে গৃহবধূকে ধ’র্ষ’ণ করেন। এ সময় গৃহবধূ অসুস্থ হয়ে পড়লে ধ’র্ষক’রা তাকে রেখে পালিয়ে যান। রাত ১টার দিকে বি’ব’স্ত্র অবস্থায় পাশের এক বাড়িতে গেলে ওই বাড়ির লোকজন গৃহবধূকে কাপড় দেন। খবর পেয়ে স্ত্রীকে উ’দ্ধা’র করে বাড়িতে নিয়ে যান বর্তমান স্বামী।

সখীপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) এএইচএম লুৎফুল কবির উদয় বলেন, গৃহবধূর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ‘ধ’র্ষ’ণে সহযোগিতা করায় মা ও সাবেক দুই স্বামীকে গ্রে’ফতা’র করা হয়েছে। গ্রেফ’তারকৃ’তদের বুধবার আ’দালতে’র মাধ্যমে কা’রাগা’রে পাঠানো হয়। অপর ধ’র্ষকদে’র গ্রে’ফতারে’র চেষ্টা চলছে।

তিনি বলেন, বুধবার ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য গৃহবধূকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। শারীরিক সমস্যা থাকায় আগামী ২৭ মে ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *