277556

মালয়েশিয়ায় যেভাবে প্রতারকদের ফাঁদে পড়ছে অসহায় বাংলাদেশিরা

নিউজ ডেস্ক।। বয়বৃদ্ধ মালয়েশিয়া প্রবাসী সাংবাদিক রফিক আহমেদ। দেশটিতে তার অনেকগুলো বছর কেটেছে। তিনি এখন অসুস্থ। স্কিন ক্যান্সারে আক্রান্ত। সাংবাদিকতা পেশাকে আঁকড়ে ধরে রেখেছেন জীবনের শেষ সময়েও। আমরা যখন কাজের ফাঁকে আড্ডায় বসি তখন উনি হঠাৎ করে কথার ফাকেঁ বলে উঠতেন সিটিং-ফিটিং মারিং-কাটিং। আমরা সবাই হাঁসি ঠাট্টা করতাম। দেশটিতে প্রতিনিয়ত প্রতারকদের ফাঁদে পড়ছেন অসহায় বাংলাদেশি প্রবাসীরা। ২০১৬ সালে দেশটিতে কর্মরত অবৈধ অভিবাসীদের বৈধতার ঘোষণা দেন মালয়েশিয়া সরকার। ধাপে-ধাপে সময় বাড়িয়ে দীর্ঘ আড়াইটি বছর চলে বৈধ করণ প্রক্রিয়া। শেষ হয় চলতি বছরের ৩০ জুন। এই সময়ের মধ্যে জন্ম নিলো অনেক প্রতারকের।

ফিট-ফাট অফিস বানিয়ে বৈধ করে দেয়ার নামে খেঁটে খাওয়া অবৈধ কর্মীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে উধাও হয়েছে প্রতারকরা। আবার কেউ-কেউ ফোনে হুমকিও দিচ্ছে। মাথার ঘাম পায়ে ফেলে বৈধ হওয়ার জন্য এসব প্রতারকদের হাতে টাকা-পয়সা আর পাসপোর্ট তুলে দিলেও তাদের কপালে জোটেনি বৈধতা। এসব অবৈধদের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজারেরও বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে। তারা এখন ইমিগ্রেশন এবং পুলিশের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ওই প্রতারকরা একজন অবৈধকর্মীকে সিটিং এবং ফিটিং করে তাদের মাধ্যমে বৈধ হওয়ার জন্য। যখন তারা ফাঁদে পড়লো তখনই শুরু করে দিলো মারিং কাটিং।

সাংবাদিক রফিক আহমদের এ উক্তির বাস্তবতা খুঁজে পাওয়া গেলো শেষ পর্যন্ত। অনুসন্ধানে জানা গেছে, মালয়েশিয়া সরকার অবৈধ কর্মীদের বৈধ করার জন্য দুটি প্রোগ্রাম চালু রেখেছিল। একটি হচ্ছে রি-হিয়ারিং অন্যটি ই-কার্ড। এ দুটি প্রোগ্রামকে ঘিরে গড়ে ওঠে শক্তিশালী একটি মিডিলম্যান চক্র। বৈধ হওয়া ও মালিকের কাছে কাজ পাওয়া, সব জায়গাতেই এ চক্রকে টাকা দিয়ে টিকে থাকতে হতো কর্মীদের। কর্মীদের বৈধ করে দেয়ার নামে ৫ থেকে ১০ হাজার রিঙ্গিত জনপ্রতি হাতিয়ে নিয়েছে।

সরেজমিনে বেশ কয়েকজন বাংলাদেশি মিডিলম্যানদের সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা রীতিমতো নিজেদের নামে ভিজিটিং কার্ড ছাপিয়ে প্রকাশ্যে এ ব্যবসা করেছেন। তারা বাংলাদেশি অবৈধ কর্মীর কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন বৈধ করিয়ে দেয়ার জন্য। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কর্মীদের বৈধ করতে পারেননি। কর্মীদের টাকাও ফেরত দিচ্ছেন না তারা। উল্টো কর্মীদের পুলিশের ভয় দেখানো হচ্ছে। এভাবে এ চক্রের কাছে জিম্মি হয়ে থাকতে হচ্ছে কর্মীদের।

এছাড়া মালিক তাদের অর্ধেক মজুরিতে কাজ করিয়ে নিচ্ছে। আবার বৈধতার নামে টাকা নিচ্ছে। ফলে হাড়ভাঙা খাঁটুনি খেটে মাস শেষে নিজে খেয়ে পরে বাঁচতেই কষ্ট হচ্ছে অবৈধ কর্মীদের। মানবেতর জীবন কাটাতে হচ্ছে তাদের। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবাসী বলেন, ১০ হাজারের বেশি বাংলাদেশি মিডিলম্যান দেশটিতে কর্মী কিনছে আর বিক্রি করছে। তারা যে যেভাবে পারে সেভাবেই কর্মীদের শোষণ করছে। কখনও হাইকমিশনের নামে, কখন পুলিশের হাত থেকে রক্ষা করে দেয়ার নামে আবার কখনও বৈধ করে দেয়ার নামে।

কোনোভাবেই মুক্তি পাচ্ছে না তাদের হাত থেকে। কর্মীরা বাধ্য হচ্ছে এ চক্রের কথা মতো চলতে। বৈধ হওয়ার আবেদন করতে কোনো কর্মীকে ১২ শ’ রিংগিত জমা দেয়া লাগলেও অনেকেই মিডিলম্যানদের বিপুল পরিমাণ অর্থ দিয়ে বৈধ হওয়ার জন্য নিশ্চিত মনে বসে আছে। এরা আর কেউ নন, বাংলাদেশেরই মানুষ। তারাও একদিন কর্মী হিসেবেই মালয়েশিয়ায় এসেছেন। দীর্ঘদিন দেশটিতে বসবাস করে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তুলেছেন। এমনকি তাদের পুলিশের সঙ্গেও ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠেছে।

মালয়েশিয়ার কেলাংয়ের কাপার বাতু লিমার মিনহু ফ্যাক্টরি এলাকায় থাকেন চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জের ইব্রাহিম মানিক। ২০০৮ সালের প্রথমদিকে কলিং ভিসায় মালয়েশিয়ায় আসেন তিনি। ভিসার মেয়াদ শেষে বর্তমানে তিনি অবৈধভাবে সেখানে বসবাস করছেন। ইব্রাহিম মানিক বৈধতা নিতে ভিসার জন্য পূর্ব পরিচয়ের সূত্র ধরে যোগাযোগ করেন টাঙ্গাইলের মাসুদের সঙ্গে। মাসুদও মালয়েশিয়ায় একই এলাকায় থাকেন দীর্ঘদিন ধরে।

এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে ইব্রাহিম মানিক জানান, ভিসা করে দেয়ার জন্য মাসুদ দুই দফায় ১০ হাজার রিংগিত (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় দুই লাখ টাকা) তার কাছ থেকে নিয়েছেন। প্রথমবার মাসুদ ২০১৫ সালে অক্টোবর মাসে ৫ হাজার রিংগিত নেয় এবং ২০১৬ সালে দ্বিতীয় দফায় আরও ৫ হাজার রিংগিত নেন তিনি।

ইব্রাহিম মানিকের অভিযোগ এতগুলো টাকা নিয়েও মাসুদ তাকে ভিসা করে দেয়নি। প্রথম দফায় পাসপোর্টে একটি ভিসা লাগিয়ে দেয়। অনলাইনে চেক করতে গেলে তা ভুয়া বলে জানা যায়। পরের বার মানিকের ছবির পরিবর্তে তার পাসপোর্টে অন্যের ছবিযুক্ত ভুয়া ভিসা লাগিয়ে দেয়। এর কৈফিয়ত এবং টাকা চাইতে গেলে উল্টো মানিককে জীবননাশের হুমকি দেন মাসুদ। মানিক বলেন, বর্তমানে তিনি একটি গ্লাস কোম্পানিতে কাজ করেন। অবৈধ হওয়ায় সচরাচর বাইরে বের হতে পারেন না। কাজ শেষে রুমেই বেশি থাকেন।

সরেজমিনে কেলাংয়ের কাপার বাতু লিমার মিনহু ফ্যাক্টরি এলাকায় প্রবাসী বাংলাদেশি কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মাসুদ এক সময় কর্মী হিসেবে মালয়েশিয়ায় গেলেও বর্তমানে তিনি আর কোনো জায়গায় কাজ করেন না। ইব্রাহিম মানিকের মতো অনেক বাংলাদেশি শ্রমিকের কাছ থেকেই ভিসা করে দেয়ার কথা বলে টাকা নিয়েছেন মাসুদ। ওই এলাকায় ইন্ডিয়ানদের সমন্বয়ে তার একটি গ্যাং স্টার রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বেশ কয়েজন প্রবাসী বাংলাদেশি। প্রবাসী কর্মীদের সঙ্গে নানাভাবে প্রতারণা করাই ওই গ্যাং স্টার গ্রুপের কাজ। এছাড়া সেখানে অবৈধ হুন্ডি ব্যবসাও রয়েছে তাদের। প্রবাসী কর্মীরা এদের দ্বারা নানাভাবে নির্যাতিত হলেও ভয়ে মুখ খুলেন না।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *