172747

১০ বছরের ছেলের সঙ্গে তরুণীর বিয়ে, বাসরশয্যা!

বিতর্কটা বেশ কয়েকদিন ধরে চলছিল। ভারতে নাবালক-নাবালিকাদের বিয়ে আটকানোর জন্য কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। চলছে জোরালো প্রচার। সেখানে টেলিভিশন সিরিয়ালে কেন দেখানো হচ্ছে নাবালকের বিয়ে? প্রশ্নের মুখে হিন্দি সিরিয়াল ‘পেহেরাদার পিয়া কী’। সিরিয়ালটি বন্ধের আবেদন জানিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি ও পুলিশ কমিশনার দাত্তা পদসালগিকারের কাছে অভিযোগ পাঠিয়েছে দেশটির একটি এনজিও। তাদের বক্তব্য, এই সিরিয়াল সমাজের ওপর কুপ্রভাব ফেলছে। তাই অবিলম্বে বন্ধ করে দেওয়া উচিত।

ভারতের জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেলে সম্প্রচারিত ওই সিরিয়ালটির গল্প নিয়ে আসলে প্রবল আপত্তি এনজিওটির। সংগঠনের প্রেসিডেন্ট আফরোজ মালিকের অভিযোগ, একজন ১০ বছরের নাবালকের সঙ্গে তরুণীর বিয়ে দেখানো হয়েছে। তাদের ফুলশয্যার দৃশ্য সম্প্রচারিত হয়েছে। মেয়েটির কপালে সিঁদুর পরিয়ে দিয়েছে নাবালকটি।

সে যেন যৌন সম্পর্কের প্রতিনিধিত্ব করছে।
অভিযোগপত্রে এনজিওর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এসব দৃশ্য সম্প্রচারিত করে কিশোরদের যৌনতা নিয়ে উৎসাহ দেওয়া হচ্ছে। প্রচ্ছন্নভাবে সহায়তা দেওয়া হচ্ছে। সমাজের কাছে ভুল বার্তা যাচ্ছে। তা কোনোভাবে মেনে নেওয়া যায় না। সংগঠনের প্রশ্ন, এসবই যদি দেখানো হবে তাহলে নাবালক-নাবালিকা বিয়ে রোধে এত টাকা খরচ করে সরকারের তরফে প্রচার করা হচ্ছে কেন?

টেলিভিশনে সম্প্রচারিত এই সিরিয়াল সরকারের প্রচেষ্টাকে ছোট করছে। আর সেন্সর বোর্ড কীভাবে এসবের অনুমতি দেয়?

যদিও বিতর্ক এই প্রথমবার নয়। এর আগে এ বিষয় নিয়ে সোশাল মিডিয়ায় সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছিলেন সিরিয়ালের প্রধান চরিত্রে অভিনয়কারী তেজস্বী প্রকাশ। গোটা কাহিনী না জেনে প্রতিবাদ করছে সাধারণ মানুষ, বলেছিলেন তিনি। শুধু এনজিও কেন, সিরিয়ালটি বন্ধ করানোর পক্ষে প্রশ্ন করেছেন অনেকে। স্মৃতি ইরানির কাছে এ নিয়ে প্রায় এক লাখ সই সংবলিত পিটিশন জমা পড়েছে। এখন কী সিদ্ধান্ত নেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, তার ওপর নির্ভর করছে সিরিয়ালের ভবিষ্যৎ।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *