362165

বাঁচা-মরার ম্যাচে বাংলাদেশের লড়াকু পুঁজি

ইনিংসের শুরুতে দুই ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বিপাকে পড়েছিল বাংলাদেশ। পাওয়ার প্লেতে আসে মাত্র ২৮ রান। সেখান থেকে ওপেনার নাঈম শেখ ও সাকিব আল হাসানের ৮০ রানের প্রতিরোধী জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় টাইগাররা। বড় সংগ্রহের আশা জেগেছিল ঠিকই। কিন্তু শেষ ৬ ওভার ৩ বলে ৫২ রান তুলতেই আট উইকেট হারায় বাংলাদেশ। উল্লেখযোগ্য জুটি গড়তে পারেনি কেউই। তাতেই ওমানের বিপক্ষে বাঁচা মরার ম্যাচে লড়াকু পুঁজি দাঁড় করায় মাহমুদউল্লাহর দল।

আজ মঙ্গলবার রাত ৮টায় ওমানের আল-আমেরাত স্টেডিয়ামে টসে জিতে ব্যাট করতে এসে নির্ধারিত ওভারে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ১৫৩ রান তোলে বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে ৬৪ রানের লড়াকু ইনিংস খেলেন নাঈম। বল হাতে ওমানের হয়ে তিনটি করে উইকেট শিকার করেন একাদশে নতুন যুক্ত হওয়া ফাইয়াজ বাট ও বিলাল খান।

শুরুতে ব্যাট করতে আসেন দুই টাইগার ওপেনার নাঈম শেখ ও লিটন দাস। কিন্তু শুরুটা আগের দিনের মতো হলো। তৃতীয় ওভারের চতুর্থ বলে ডিপ মিডউইকেটে জীবন পাওয়ার পরের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন লিটন। জোড়ালো আবেদনে আম্পায়ার সাড়া না দেওয়ায় আপিল করে লিটনকে ফেরায় ওমান। মাত্র ৬ রান করে বিলাল খানের শিকার হন তিনি।

তিনে সাকিব আল হাসানের জায়গা এসে শূন্য রানে ফেরেন শেখ মেহেদী হাসান। নিজের বলে নিজেই ‍দুর্দান্ত ক্যাচে এই ব্যাটসম্যানকে ফেরান ফাইয়াজ বাট। চতুর্থ উইকেটের জুটিতে ওপেনার নাঈম শেখের সঙ্গে প্রতিরোধী জুটি গড়েন সাকিব আল হাসান। শুরুতে চাপে পড়ার পর দলকে খাদের কিনারা থেকে টেনে তোলেন এই যুগল।

দলীয় ১০১ রানের মাথায় নিজের ভুলে নিজেই রান আউটের শিকার হন সাকিব। তাতেই নাঈমের সঙ্গে তার ৮০ রানের লড়াকু জুটি ভাঙে। দলের বিপর্যয় কাটিয়ে উঠার পর ফাইয়াজ বাট বলে সিঙ্গেলের ডাক দেন নাঈম। কিছুটা ধীর গতিতে দৌড়তে গিয়ে আকিব ইলিয়াসের সরাসরি থ্রোতে আউট হন তিনি। ২৯ বলে ছয় বাউন্ডারিতে ৪২ করেন তিনি। পাঁচে এসে সুবিধা করতে পারেননি নুরুল হাসান সোহান। তিন রান করে বাউন্ডারিতে স্বন্দ্বীপ গোউদের তালুবন্দি হন তিনি।

পঞ্চম উইকেটের জুটিতে সুবিধা করতে পারেননি আফিফ হোসেন ধ্রুব। উইকেটে টিকতে না পেরে কলিমুল্লাহর বলে এক্সট্রা কভার অঞ্চলে যতিন্দর সিংয়ের তালুবন্দি হন তিনি। একের পর এক উইকেট হারাতে থাকে বাংলাদেশ। একই ওভারে ক্যারিয়ারের তৃতীয় অর্ধশতক ও বিশ্বকাপের প্রথম ফিফটি করা নাঈমকে ৫০ বলে ৬৪ করে ফেরেন এই পেসার।

পজিশনে রদবদল এনে শেষের দিকে ব্যাটিংয়ে আসেন মুশফিক। একটি বাউন্ডারি হাঁকিয়ে আশা জাগিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ১৯তম ওভারের ফাইয়াজ বাটের প্রথম বলে ব্যাটের কানায় লেগে উইকেটরক্ষকের তালুবন্দি হন তিনি। পরের বলে ফেরেন সাইফউদ্দিনও। সাতে আসা মাহমুদউল্লাহর ১০ বলে ১৭ রানে ভর করে ১৫৩ রানের পুঁজি গড়ে বাংলাদেশ।

 

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *