359378

সাড়ে তিন বছর আগেই সাব্বিরকে ‘শেষ সুযোগ’ দেয়া হয়েছিল

খেলাধূলা ডেস্ক : ২০১৪ সালে জাতীয় দলের জার্সিতে অভিষেক হয় সাব্বিরের। সবশেষ বাংলাদেশের হয়ে খেলেছেন ২০১৯ সালে সেপ্টেম্বরে। তার আগে একাধিকবার শাস্তির মুখে পড়তে হয়েছে ডান-হাতি এই ব্যাটসম্যানকে। ২০১৬ সালে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) চতুর্থ আসর বসেছিল।

চট্টগ্রামে টিম হোটেলে নারীঘটিত কেলেঙ্কারিতে জড়ান তিনি। ১২ লাখ টাকা জরিমানা গুণতে হয় তাকে। বিপিএলের পঞ্চম আসরেও আলোচনায় আসে সাব্বির রহমানের নাম। আম্পায়ারের সঙ্গে অশোভন আচরণ করেন তিনি। শাস্তি হিসেবে জরিমানা করা হয় তিনি।

২০১৮ সালে জাতীয় লিগে চলাকালে ক্ষুদে দর্শককে পেটান সাব্বির। আলোচনায় আসেন। ম্যাচ অফিসিয়ালদের সঙ্গে বাজে আচরণও করেন। সেসময় বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ দেয়া, ২০ লাখ টাকা জরিমানার সঙ্গে ৬ মাস ঘরোয়া ক্রিকেটে নিষেধাজ্ঞা পান তিনি। সেসময় ক্রিকেট বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছিলেন, এটাই সাব্বিরের জন্য শেষ সুযোগ। আরটিভি

২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) সভাপতি। সাব্বির ইস্যুতে তিনি বলেছিলেন, ‘শৃঙ্খলা কমিটি বলেছে যে এবারই শেষ সুযোগ দেয়া হয়েছে। এরপরও করলে অনির্দিষ্ট কালের জন্য নিষিদ্ধ করার ভাবনাও আছে।’

সাড়ে তিন বছর পর আবারও আলোচনায় ২৯ বছর বয়সী সাব্বির। এবার খেলোয়াড় ইলিয়াস সানিকে গালি-গালাজ ও ইট ছোঁড়ার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে।

বুধবার (১৬ জুন) ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) ওল্ড ডিওএইচএস স্পোর্টস ক্লাব ব্যাট করছিল শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের বিপক্ষে। বিকেএসপির তিন নম্বর মাঠে ফিল্ডিং করছিলেন শেখ জামালের স্পিনার ইলিয়াস সানি। এমন সময় মাঠের বাইরে থেকে গালি গালাজ ও ইট ছুঁড়ে মেরেছেন লিজেন্সড অব রূপগঞ্জের ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান। দাবি করেছেন সানি।

৩৬ বছর বয়সী ইলিয়াস সানি বলেন, ‘সাব্বিরদের বাস এসে বিকেএসপির তিন নম্বর গ্রাউন্ডের সামনে থামে। সাব্বির আমাকে টিজ করছিল। আমি পাত্তা দেইনি। এক পর্যায়ে তিনি আমাকে ইট ছুঁড়ে মারেন।’

২৯ বছর সাব্বিরের সঙ্গে ব্যক্তিগত কোনও ঝামেলা নেই বলে দাবি করেন জাতীয় দলের হয়ে ৪ টেস্ট ও ৪ ওয়ানডে খেলা বাম-হাতি এই স্পিনার। তার ভাষ্য, ‘আমার সঙ্গে তার সম্পর্ক স্বাভাবিক ছিল।’

১৩ জুন বিকেএসপি তিন নম্বর গ্রাউন্ডেই মুখোমুখি হয়েছিল রূপগঞ্জ ও শেখ জামাল। ওই ম্যাচে বৃষ্টি আইনে সাত রানে জয় পায় সানির দল।

‘তাদের বিপক্ষে শেষ ম্যাচ যেটা খেলেছিলাম সেদিন ইংরেজিতে অকথ্য ভাষায় গালি দেন। আমি যখন ব্যাট করতে নামি তখন গালি দিতে থাকেন। সঙ্গে সঙ্গে প্রশ্ন করেছিলাম, বুঝে বলছে নাকি? আমার উত্তর না দিয়ে গালি তিনবার রিপিট করেন। আজ যখন গালি দিচ্ছিল আমি কিছুই বলিনি। ইট মারার পর ম্যাচ অফিসিয়াল ও ক্লাবকে বিষয়টি জানাই।’

বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার যোগাযোগ করেও বক্তব্য পাওয়া যায়নি সাব্বির রহমানের। তার বাবা মোস্তাফিজুর রহমান আরটিভি নিউজকে জানান, এই ঘটনা নিয়ে ছেলের সঙ্গে তার কোনও কথা হয়নি।

ক্রিকেট কমিটি অব ঢাকা মেট্রোপলিসের (সিসিডিএম) কাছে অভিযোগ করেছে শেখ জামাল কর্তৃপক্ষ। ক্লাবের সচিব মো. ফয়জুর রহমান আরটিভি নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ক্লাবের এই কর্তা বলেন, আমরা সিসিডিএমের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। তারা এখনও কোনও সিদ্ধান্ত দেয়নি।

চিঠিতে তারা লিখেছে, ‘অত্যন্ত দুঃখের সহিত জানাইতেছি যে, অদ্য ১৬ জুন ২০২১ তারিখে বিকেএসপি এর ৩নং মাঠে লেঃ শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব লিমিটেড বনাম ওল্ড ডিওএইচএস স্পোর্টস ক্লাব এর মধ্যকার খেলা চলাকালীন সময়ে লেঃ শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব লিমিটেড- এর খেলোয়াড় জনাব মোহাম্মদ ইলিয়াসকে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ এর খেলোয়াড় জনাব সাব্বির রহমান রুম্মন মাঠের বাহির হতে বিনা কারণে উপুর্যপরি ইট ছুঁড়ে মারেন।’

চিঠিটি আরও উল্লেখ আছে, ‘অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও উচ্চস্বরে বর্ণ বৈষম্য মূলক আচরণ করে বলেন যে, ওই কাইল্যা, কাইল্যা, কাইল্যা ইলিয়াস। যাহা একজন প্রফেশনাল ক্রিকেট খেলোয়াড় হিসেবে এহেন আচরণ অশোভনীয়ই নয়, শাস্তিযোগ্য অপরাধও বটে। এমতাবস্থায়, জনাব সাব্বির রহমান রুম্মন এর বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আপনাকে বিশেষভাবে অনুরোধ জনানো যাচ্ছে।’

 

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *