355853

করোনার নতুন ও পুরনো রূপের পার্থক্য কী? জেনে নিন লক্ষণগুলো

ডেস্ক রিপোর্ট।। প্রথম ঢেউ সামলে ওঠার আগেই করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়েছে বিশ্বের একাধিক দেশে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এখন তাণ্ডব চালাচ্ছে করোনার পরিবর্তিত রূপ। বাংলাদেশেও দ্বিতীয় ঢেউয়ে বেশি সংক্রমণ ছড়াচ্ছে করোনার নতুন রূপ। প্রায় প্রতিদিনই সংক্রমিত করছে হাজার হাজার মানুষকে, যা নিয়ে ফের নতুন করে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।

তবে কি দ্বিতীয় ঢেউ সামাল দেওয়ার আগে ফের তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়বে বিশ্বে? এই আশঙ্কাতেই দিন গুনছেন বিজ্ঞানীরা। কোভিড পরীক্ষা ও চিকিৎসা পরিকাঠামো এখন আগের তুলনায় অনেক উন্নত। নতুন স্ট্রেনের সংখ্যা বাড়ছে ক্রমশ।

বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা, সংক্রমণের এই দ্বিতীয় ঢেউ প্রথমটির চেয়ে আরও বেশি কঠিন হতে পারে, যা স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা ভেঙে দেওয়ার পথে যেতে পারে।
বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনার নতুন স্ট্রেন কেবল ভয় তৈরি করছে না, একই সঙ্গে স্বাস্থ্য পরিকাঠামোতেও সমস্যা তৈরি করতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এই কারণে সবার জন্য ভ্যাকসিনের ব্যবস্থার করার ব্যাপারে জোর দেওয়া হচ্ছে।

পুরানো বনাম নতুন করোনা স্ট্রেনের পার্থক্য কী?

ভাইরাস এবং অন্যান্য রোগজীবাণু পরিবর্তন এবং প্রকৃতি থেকে পৃথক হিসেবে পরিচিত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যানুযায়ী, একটি ভাইরাস তার নিজস্ব প্রতিলিপি বা একাধিক অনুলিপি তৈরি করে, যা সাধারণ ব্যাপার। এই পরিবর্তনগুলোকে ‘মিউটেশন’ বলা হয়। ভাইরাসের এক বা একাধিক রূপান্তরকে মূল ভাইরাসটির ‘রূপ’ বলা হয়।

মিউটেশনগুলোর জিনোমিক সিকোয়েন্সিংও থাকতে পারে, যা তাদের স্বাস্থ্যকর কোষগুলো আরও গভীরভাবে অতিক্রম বা সংযুক্ত করার অনুমতি দিতে পারে। তিনটি সর্বাধিক ঝুঁকির এনফেমাস সিভিডি ভেরিয়েন্টগুলো হল কেন্ট, যুক্তরাজ্য (বি 1.1 .1.7 ভেরিয়েন্ট), দক্ষিণ আফ্রিকা (বি 1.1 .351 ভেরিয়েন্ট) এবং ব্রাজিল (বি 1.1.1 .28.2.1 বা পি 1 ভেরিয়েন্ট), বাস্তব ভাইরাস স্ট্রেন এর রূপসমূহ।

যখন একটি ভাইরাসের স্ট্রেনের দুটি মিউটেশন তৃতীয় সুপার-সংক্রামিত স্ট্রেন তৈরি করে তখন একটি দ্বৈত রূপান্তর উত্থিত হয়। ডাবল মিউট্যান্ট বৈকল্পিক, প্রথম মহারাষ্ট্র রাজ্যে চিহ্নিত, E484Q এবং L452R রূপান্তর মধ্যে ক্রস হিসাবে বিবেচিত হয়। যদিও E484Q রূপান্তরটি L452R মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে এসেছে বলে জানা গেছে।

নতুন স্ট্রেনের কী আলাদা বৈশিষ্ট্য রয়েছে?

করোনার নতুন স্ট্রেনের লক্ষণগুলোর মধ্যে রয়েছে কাশি, জ্বর, ব্যথা এবং গন্ধ চলে যাওয়া। নতুন স্ট্রেনের লক্ষণগুলো আমাদের শরীরে আক্রমণ করার আগে ভাইরাসটি আগের চেয়ে স্মার্ট হয়ে উঠেছে। উদাহরণস্বরূপ- শ্রবণশক্তি হ্রাস, পেশি ব্যথা, ত্বকের সংক্রমণ আরও কিছু লক্ষণ যা মারাত্মক হয়ে উঠেছে।

বিজ্ঞানীরা এখনও ডাবল মিউট্যান্ট ভাইরাস নিয়ে গবেষণা করছেন। তবুও, অনেকে মনে করেন যে এটি ইউকে বৈকল্পিকের চেয়ে বেশি সংক্রামক বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এর লক্ষণগুলো আরও গুরুতর কিনা তাও অনিশ্চিত। মাস্ক পরা এবং সতর্কতা অবলম্বন করা সম্পূর্ণরূপে নিজেকে রক্ষা করাই একমাত্র উপায়।

 

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *