350065

তিয়ান-ই’কে প্রতিমাসে ৩০ লাখ টাকা ভাড়া দিয়েছে বাংলাদেশ

পদ্মা সেতুতে ব্যবহার করা হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ভাসমান ক্রেন। চীন থেকে আনা তিয়ান-ই ক্রেনটি ছিল শুরু থেকেই। পদ্মা সেতুর নির্মাণে বিশেষ ধরণের এই সর্বাধুনিক ক্রেনটি ৪৫ মাস ধরে ব্যবহার করেছে বাংলাদেশ। স্প্যান বসানোর কাজ শেষে তিয়ান-ই ফেরত যাচ্ছে নিজ দেশ চীনে।

জানা গেছে, এই সর্বাধুনিক ক্রেনটি ব্যবহারে প্রতি মাসে খরচ পড়েছে ৩০ লাখ টাকা। অর্থাৎ, পদ্মা সেতু প্রকল্পে ক্রেনটি ব্যবহারে ৪৫ মাসে খরচ হয়েছে সাড়ে ১৩ কোটি টাকা।

প্রতি মাসে ৩০ লাখ টাকা খরচের বিষয়টি নিশ্চিত করে পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের একটি জাতীয় গণমাধ্যমকে জানান, চীনে তৈরি ৩ হাজার ৬০০ টন ধারণ ক্ষমতার বিশেষ ধরনের এই ভাসমান ক্রেনটির দাম আড়াই হাজার কোটি টাকা। ২০১৭ সালের মার্চ মাসে ক্রেনটি পদ্মা সেতু প্রকল্পে আনা হয়। সে বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর প্রথম স্প্যান থেকে চলতি বছরের গত ১০ ডিসেম্বর সেতুর ৪২টি পিয়ারে ৪১টি স্প্যান বসানোর কাজ করে ক্রেনটি।

ক্রেনটির পরবর্তী গন্তব্য হংকং। মাওয়া থেকে চট্টগ্রাম নিতে ক্রেনটিকে নিরাপত্তা দেবে পুলিশ, কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী। পরবর্তীতে চট্টগ্রাম থেকে একটি মাদার ভেসেল ব্যবহার করে হংকংয়ে যাবে ক্রেনটি। ২০১৭ সালে মাওয়া আসা তিয়ান-ই ওই বছরেরই ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে প্রথম স্প্যানটি স্থাপন করে। গত ১০ ডিসেম্বর ১২ ও ১৩ নম্বর খুঁটিতে ৪১তম স্প্যান বসিয়ে বাংলাদেশের মিশন শেষ করে।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *