179317

‘বাবাকে কেন মারছ- বলার পরই মেয়ে খুন’

রাজধানীর উত্তর বাড্ডার আলোচিত বাবা-মেয়ে হত্যার ঘটনা স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘুমন্ত অবস্থায় বাবা জামিল শেখকে (৩৮) হত্যার ঘটনা দেখে জেগে যায় তার নয় বছরের মেয়ে নুসরাত। সে বলতে থাকে, তোমরা বাবাকে মারছ কেন? এরপর জামিলের স্ত্রী আরজিনা ও তার প্রেমিক শাহীন মিলে তাকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করেন।
.
শনিবার দুপুরে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির গুলশান জোনের উপকমিশনার মোশতাক আহমেদ এসব তথ্য জানান।
তিনি বলেন, ‘নিহত জামিল শেখের স্ত্রী আরজিনার সঙ্গে তাদের ভাড়াটিয়া (সাব-লেট) শাহীনের পরকীয়া ছিল। পথের কাটা সরাতেই জামিলকে হত্যার পরিকল্পনা করেন আরজিনা ও শাহীন।’
পুলিশ জানায়, আসামিরা পরিকল্পিতভাবে জামিলকে হত্যা করে। এ সময় তাদের মেয়ে নুসরাত দেখে ফেলায় তাকেও হত্যা করেন শাহীন। তাকে হত্যার বিষয়ে মা আরজিনা বেগম সম্মতি দিয়েছিলেন। কারণ সম্পর্কের এক পর্যায়ে জামিলকে তালাক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন আরজিনা। তখন শাহীন তাকে তালাক না দেওয়ার পরামর্শ দিয়ে হত্যার পরিকল্পনার কথা জানান।

এর আগে জামিল শেখ ও তার মেয়ে নুসরাত হত্যাকাণ্ডে শুক্রবার শিশুটির মা আরজিনা বেগম এবং তাদের ভাড়াটিয়া দম্পতি শাহীন-মাসুমাকে খুলনা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
ডিসি মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘বাবাকে হত্যার সময় মেয়ে নুসরাত জেগে যায়। সে শাহীনকে প্রশ্ন করে, বাবাকে কেন মারছ এবং চিৎকার করে কান্নাকাটি করতে থাকে। তখন নুসরাতকে হত্যার পরিকল্পনা করেন শাহীন। তবে আরজিনা প্রথমে এতে সম্মতি না দিলেও পরে বিপদে পড়ার আশঙ্কায় মেয়েকে হত্যার পরিকল্পনায় রাজি হন।’
তিনি বলেন, ‘তখন নুসরাতকে ঘরের বিছানায় ফেলে গলা টিপে হত্যার চেষ্টা করেন শাহীন। তবে নুসরাত চিৎকার করায় তার মুখে বালিশ চাপা দিয়ে মেরে ফেলা হয়।’

ডিসি মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের পর ছাদে বসে শাহীন ও আরজিনা গল্প সাজাতে থাকেন। এক পর্যায়ে তারা সিদ্ধান্ত নেন, কেউ জিজ্ঞেস করলে ডাকাতরা জামিল ও তার মেয়েকে হত্যা করেছে বলে বলবে। এছাড়া ডাকাতেরা যাওয়ার সময় তাকে ধর্ষণ করেছে বলে দাবি করবে আরজিনা।’


তিনি আরও বলেন, ‘এই নাটক বাস্তবে রূপ দেওয়ার জন্য সারারাত ছাদের সিঁড়ির সামনে মুখ গোমড়া করে বসেছিলেন আরজিনা। পরদিন সকালেও পুলিশ গিয়ে তাকে সিঁড়ির সামনে বসে থাকতে দেখে। তবে ঘটনার রাতেই স্ত্রী মাসুমাকে নিয়ে খুলনায় পালিয়ে যান শাহীন।’
ডিসি জানান, এ ঘটনায় তদন্তে আশপাশের অনেকের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। বিছানায় ঘুমিয়ে থাকা শিশুও কিছু তথ্য দিয়েছে। সব মিলে এ পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে এই দু’জনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। তাদের আদালতে পাঠিয়ে রিমান্ড আবেদন করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর উত্তর বাড্ডার হোসেনবাগ মার্কেটের পাশে ময়নারমোড় এলাকার একটি বাসার ছাদ থেকে জামিল শেখ ও তার শিশুকন্যা নুসরাতের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।
জামিল শেখ গোপালগঞ্জ সদরের করপাড়া ইউনিয়নের বনপাড়া গ্রামের মৃত বেলায়েত শেখের ছেলে। স্ত্রী, মেয়ে ও এক ছেলেকে নিয়ে তিনি ওই বাসায় ভাড়া ছিলেন।

সূত্র: পরির্বতন

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *