309864

ফেনীতে আজহারী’র মাহফিল পরিণত হলো জনসমুদ্রে

বর্তমান সময়ে এক শ্রেণির মানুষের কাছে প্রিয় হয়ে উঠেছেন ইসলামী বক্তা ড. মিজানুর রহমান আযহারী। তবে বিভিন্ন কারণে সমালোচিতও হয়েছেন আযহারী। সম্প্রতি দেশের নানা স্থানে তাঁর ওয়াজ মাহফিল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে, কোথাও বা আবার তিনি প্রতিরোধের মুখে পড়েছেন।

ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়া ইউনিয়নের উত্তর কাশিমপুরে বর্তমান সময়ের আলোচিত মুফাসসির ও জনপ্রিয় ইসলামিক স্কলার ড. মিজানুর রহমান আজহারীর মাহফিল বুধবার শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

উত্তর কাশিমপুর মডেল দাখিল মাদরাসা মাহফিলের আয়োজন করে। সকাল থেকে মাদরাসা সংলগ্ন মাঠে বিভিন্ন এলাকা থেকে সব বয়সী নারী-পুরুষ ভীড় জমায়। বাদ আসর লক্ষাধিক জনতার সমাগমে মাহফিল স্থল ও আশপাশের এলাকা জনসমুদ্রে পরিণত হয়। জোহরের নামাজের পর শুরু হয় বয়ান।

মাগরিবের পর মহাগ্রন্থ আল-কুরআন থেকে তাফসীর পেশ করেন ড. মাওলানা মিজানুর রহমান আল-আজহারী। মাহফিলে সমাজ-রাষ্ট্রে শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য কুরআন-হাদিসের আলোকে ১০ বিষয়ের উপর বিশদ আলোচনা করেন।

পাঠাননগর আমিনিয়া ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে এবং আয়োজক কমিটির আহবায়ক ও উত্তর কাশিমপুর মডেল দাখিল মাদরাসার সেক্রেটারী কামরুজ্জমান মাসুমের পরিচালনায় মাহফিলে বয়ান করেন ফেনী আলীয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মাহমুদুল হাসান, পদ্মা টেক্সটাইল মিল মসজিদের খতিব মাওলানা অধ্যক্ষ মফিজুল ইসলাম, কুমিল্লার মাওলানা রহমত উল্লাহ, ছাগলনাইয়ার মধুগ্রাম জিনারহাট ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা জাকারিয়া, আবদুল আজিজ মাক্কি, উত্তর কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব মাওলানা সাইফুল ইসলাম।

ড. মিজানুর রহমান আজহারী বলেছেন, আল্লাহর সৃষ্টি নিয়ে ব্যাঙ্গ করা যাবেনা। বর্ণ, আকার ও নাম নিয়ে কথা বলা যাবেনা। কখনো একে অপরের দোষ খোঁজা যাবেনা। ব্যাঙ্গ, কটাক্ষ করা যাবেনা। অন্যকে ঠাট্টা করো না। কিছু লোক আছে সারাদিন অন্যকে নিয়ে সমালোচনা করে। নিজের দোষ খুঁজতে হবে। যে নিজে নিজের সমালোচনা এবং নিজের সমস্যা সমাধান করতে পারে সেই বুদ্ধিমান।

যারা নিচুমনের মানুষ তারাই অন্যের দোষ নিয়ে সমালোচনা করে। যারা মাঝারি ধরনের মানুষ তারা এলাকায় বিভিন্ন ঘটনা নিয়ে কথা বলে। বড় মনের মানুষরা আইডিয়া নিয়ে কথা বলে সমাজটাকে পাল্টে দিতে চায়। যুগ-জমানা পাল্টে দিতে চাই না অনেকজন, এক মানুষই আনতে পারে জাতির জাগরন। এক মানুষই জীবতকালে বাঁচায় কাফেলা। ক্ষুদ্র ডিঙ্গি বাঁচায় জাহাজ অসীম দরিয়ায়। এজন্য নিজেকে শুধরাতে হবে। আগে নিজে ঠিক হয়ে যান, দুনিয়া এমনি ঠিক হয়ে যাবে।

তিনি আরো বলেন, মুনাফিকরা আন্দাজ-অনুমান নির্ভর কথা বলে। আন্দাজ-অনুমান সত্যের বিকল্প হতে পারে না। পজেটিভ কথা বলতে হবে। গুজবে কান দেয়া যাবেনা। গীবত করা যাবেনা। কোন মুমিন গীবত করতে পারেনা। ভাতৃত্ব তিন ধরনের। একটা মায়ের পেটের ভাই, আরেকটি দ্বীনি ভাই। অপরটি মানবতার দিক থেকে ভাই। সেই হিসেবে নাস্তিক, হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টানরা আমাদের ভাই। আমরা সবাই এক। বিভেদের প্রাচীর আর বৃত্ত আমরা বানিয়েছি।

ইসলাম, ধর্ম, জাতীয়তাবাদ, বর্ণ, ভাষা পৃথক করেছি। শেতাঙ্গ-কৃষ্ণাঙ্গের প্রার্থক্য। ইসলামে কোন দাস প্রথা নেই। প্রেসিডেন্ট, শিক্ষক, রিক্সাওয়ালা, কুলি, ঠেলাওয়ালা কোন প্রার্থক্য নেই। আল্লাহর সামনে সকল বিশ্বের মানুষ এক। বিভেদের প্রাচীর ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিতে হবে। আমরা কোন দল করি, কোন পীরের মুরিদ। সবার আগে পরিচয় আমরা মুসলিম। ভালোবাসা দিয়ে বিশ্ব জয় করতে হবে।

সকল হিংসা-বিদ্বেষ আর বিভেদ ভুলে ঐক্য তৈরি করার আহবান জানিয়ে আজহারী বলেন, বাংলাদেশকে জঙ্গী, মাদক, যৌতুক, সুদমুক্ত করার জন্য যুবকরাই যথেষ্ট। নামাজ, রোজা, লজ্জাস্থান হেফাজত ও স্বামীর আনুগত্য করার জন্য নারীদের প্রতি আহবান জানান তিনি।

মাহফিলের আয়োজক কমিটির আহবায়ক কামরুজ্জামান মাসুম জানান, দুই লক্ষাধিক মানুষের অংশগ্রহণে শান্তিপূর্ণভাবে তাফসিরুল কুরআন মাহফিল শেষ হয়েছে। কোনো প্রকার অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে জেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যথেষ্ট সহযোগিতা করেছে।

মাহফিলে আমন্ত্রীত অতিথি হিসেবে অংশ নেন ফেনী মডেল থানার ওসি মো: আলমগীর হোসেন, ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ সাজেদুল ইসলাম পলাশ, ফেনী পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও পৌরসভার কাউন্সিলর বাহার উদ্দিন বাহার, জেলা পরিষদ সদস্য ও পাঁচগাছিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মাহবুবুল হক লিটন, পাঁচগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মানিক, শর্শদী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আবুল হাসেম, লক্ষীয়ারা ইসলামিয়া আলিম মাদরাসার সভাপতি ইসমাইল হোসেন খোকন, সদর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি নুরুল আবছার আপন, ছাত্রলীগ সভাপতি ফখরুল ইসলাম প্রমুখ।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *