302840

বাংলাদেশের স্বার্থ শেখ হাসিনা বিক্রি করবে সেটা হতে পারে না: প্রধানমন্ত্রী

ভারতে এলপিজি গ্যাস রপ্তানি এবং ফেনী নদীর পানি বণ্টন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের কোনো স্বার্থ শেখ হাসিনা বিক্রি করবে এটা কখনো হতে পারে না।বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।নিউইয়র্ক ও দিল্লি সফরের অভিজ্ঞতা জানাতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এলপিজি গ্যাস প্রাকৃতিক গ্যাস নয়, এটা আমাদের দেশে উৎপাদন হয় না। এটা আমাদের প্রাকৃতিক নয়, আমদানি করা গ্যাস। ত্রিপুরায় যে গ্যাস দিচ্ছি, সেগুলো আমদানি করা গ্যাস।’তিনি বলেন, ‘২০০১ সালে গ্যাস বিক্রি না করার কথা বলায় আমরা ক্ষমতায় আসতে পারিনি। আজকে যারা খুব সমালোচনা করছে, গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে সেই বিএনপি-জামায়াত ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসেছিল।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের কোনো স্বার্থ শেখ হাসিনা বিক্রি করবে এটা কখনো হতে পারে না। বরং যেসব সমস্যা ছিল, সেগুলো একেকটা করে আমরা সমাধান করছি।’তিনি বলেন, ‘ত্রিপুরা যদি কিছু চায় আমাদের দিতে হবে। কারণ ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদের বাহিনীর নির্যাতনের মুখে ত্রিপুরা আমাদের আশ্রয় দিয়েছিল। সেখানে আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাঁটি ছিল, প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছিল।’

ফেনী নদীর পানি বণ্টন নিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি যদি বলি ফেনী নদীর উৎপত্তিস্থল কোথায়? বলুন তো যারা এটা নিয়ে অনেক কথা বলছেন এটা কোথায়? এটার উৎপত্তি খাগড়াছড়ি। এটার বড় অংশ হচ্ছে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে। সীমান্তবর্তী নদীতে দুদেশেরই স্বার্থ থাকে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা যে পরিমাণ পানি তাদের দিচ্ছি তা অত্যন্ত নগণ্য। এত বড় একটা নদী, যার বড় অংশ আমাদের ফেনী-ছাগলনাইয়ায়। এটা নিয়ে কেন এত চিৎকার আমি বুঝি না। কেউ যদি পানি পান করতে চায়, আমরা যদি না দিই এটা কেমন দেখায়?’

এসময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিস্তা নদীর বিষয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারতের দেওয়া প্রতিশ্রুতির কথা উল্লেখ করে বলেছেন- সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে আলোচনা করে এ সমস্যার সমাধানে তিনি আগ্রহী।তিনি বলেন, আমি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছি। তিনি আগামী বছর বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর উৎসবে যোগ দেওয়ার বিষয়ে আগ্রহী বলে জানান।

জাতিসংঘের ৭৪তম সাধারণ অধিবেশনে যোগ দিতে ২২ থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর নিউইয়র্ক সফর করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে ফিরে ৩ থেকে ৬ সেপ্টেম্বর দিল্লি সফর করেন।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *