193291

তামিম ইকবাল ছাড়িয়ে গেলেন ইনজামামকে

দরকার ছিল ১২৬ রান তাহলেই সনাথ জয়াসুরিয়াকে ছাড়িয়ে এক ভেন্যুতে ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটা হয়ে যেত তামিম ইকবালের। কিন্তু শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে ত্রিদেশীয় সিরিজের ম্যাচটি খেলতে নামার সময় সামনে আসলে ছিলেন দুজন। অন্যজন পাকিস্তানের কিংবদন্তি ইনজামাম উল হক। ৭৬ রান করতে পারলেই ইনজামামকে ছাড়িয়ে ঠিক জয়াসুরিয়ার পেছনে গিয়ে দাঁড়ানোর সুযোগটা ছিল তামিমের। সেটা তামিম করতে পেরেছেন ঠিকই। কিন্তু ৮৪ রান করে ফিরে গিয়ে একটুর জন্য বাংলাদেশের ড্যাশিং ওপেনার মিস করলেন দশম সেঞ্চুরিটা।

বিশ্ব ইতিহাসের অন্যতম সেরা মারকুটে ওপেনার লঙ্কান জয়াসুরিয়া ১৯৯২ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত এক মাঠে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটা নিজের দখলে নিয়ে বসে আছেন। পাকিস্তানের কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান ইনজি ১৯৯৩ থেকে ২০০২ পর্যন্ত একটি মাঠে খেলে রেকর্ডটার এক নম্বর জায়গায় গিয়েছিলেন। পরে জয়াসুরিয়া তাকে টপকে গেছেন শীর্ষে। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ৭১ ম্যাচের ৭০ ইনিংসে ৩৮.৬৭ গড়ে ২৫১৪ রান করেছিলেন জয়াসুরিয়া। ৪টি সেঞ্চুরি ও ১৯টি ফিফটি ওই মাঠে। ইনজি শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ৫৯ ম্যাচে ৫০.২৮ গড়ে ২৪৬৪ রান করেছিলেন। ওখানে তার সেঞ্চুরি ৪টি। আর ফিফটি ১৭টি।

এই ম্যাচের আগে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে (২০০৭-২০১৮) ৭২ ম্যাচ খেলেছেন তামিম। বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ওয়ানডে রানের মালিকের এই হোম অব ক্রিকেটে ৭১ ইনিংসে ২৩৮৯ রান ছিল তখন। গড় ৩৪.৬২। সেঞ্চুরি ৫টি। ফিফটি ১৪টি। তবে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে করা দুই সেঞ্চুরিই লঙ্কার মাটিতে। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মিরপুরে এই ৮৪ তামিমের সর্বোচ্চ। এখানে লঙ্কানদের বিপক্ষে তার আগের ইনিংসগুলো যথাক্রমে ৯, ১৮, ৪০, ২১ ও ৫৯।

এবার প্রিয় মাঠ মিরপুরে লঙ্কানদের বিপক্ষে সেঞ্চুরির সুযোগ ছিল। হলো না। তবে জয়াসুরিয়ার পেছনে গিয়ে দাঁড়ালেন। পরের ম্যাচে ৪২ রান করলেই বিশ্ব রেকর্ডটা তামিমের। এখন ৭৩ ম্যাচে ৩৫.৩২ গড়ে মিরপুর শেরে বাংলায় তামিমের রান দাঁড়াল ২৪৭৩। পেছনে ইনজি, সামনে জয়াসুরিয়া। এই রেকর্ডের চতুর্থ স্থানে আছেন সাকিব আল হাসান। আড়াই হাজারের কাছাকাছি রান তার।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *