191974

বাংলা ভাষাকে ভিত্তি করেই আমাদের স্বাধীনতা : প্রধানমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক পরিসরে বাঙালির অভিজ্ঞতা ও দৃষ্টিভঙ্গির আদান-প্রদানের মাধ্যমে জ্ঞানের পরিধি আরও বিস্তৃত হবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আধুনিক অগ্রসরমান বিশ্বের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে কেউ যেন মাতৃভাষাকে হারিয়ে না ফেলে। এই বাংলা ভাষাকে ভিত্তি করেই কিন্তু আমাদের স্বাধীনতা, আমাদের আত্মপরিচয়ের ঠিকানা।’
আজ শনিবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আন্তর্জাতিক বাংলা সাহিত্য সম্মেলন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাঙালি কখনো কারো কাছে মাথা নত করে না, মাথা নত করতে জানে না। কাজেই বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করেই আমাদের চলতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের সাহিত্য আরো গতিশীল ও সহজ হয়েছে। আমাদের সাহিত্য আরও ঋদ্ধ হবে। এই আয়োজন একদিকে নতুন সম্ভাবনাকে উন্মোচিত করবে, অন্যদিকে নিজেদের সামর্থ্যকে তুলে ধরবে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, অতীতের বিভিন্ন সময়ে বাংলা ভাষার ওপর শাসকগোষ্ঠীর খগড় নেমে এসেছিল। কেবল বাংলা ভাষা নয়, বাংলা অক্ষরও মুছে দেয়ার চেষ্টা হয়েছিল। বারবার ভাষার ওপর আক্রমণ এসেছে। কিন্তু সবগুলো আক্রমণই প্রতিহত হয়েছে।
ভাষা আন্দোলনের সূচনার মধ্য দিয়েই বাঙালি জাতি স্বাধীনতা লাভ করে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একুশের পথ বেয়েই বাঙালি জাতি মহান মুক্তিযুদ্ধে জয়লাভ করে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ২১ ফেব্রুয়ারিকে সরকারি ছুটি হিসেবে ঘোষণা করে। মুক্তিযুদ্ধে ভারত আমাদের সহযোগিতা করেছিল। আমরা এর জন্য ভারতের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।’

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘পাকিস্তানি শাসকরা বাংলা ভাষাকে কেড়ে নেয়ার জন্য নানাভাবে বাধা দিয়েছে। কেবল বাংলা ভাষা নয়, বাংলা অক্ষরও মুছে দেয়ার চেষ্টা হয়েছিল। রবীন্দ্রনাথ পড়া যাবে না বলে সমন জারি করে পাকিস্তানের সামরিক স্বৈরশাসকরা। এরপর আঘাত আসে নজরুলের ওপর। তার কবিতায় সাম্প্রদায়িক পরিবর্তন আনার অপচেষ্টা হয়। বাংলা সাহিত্যকে কলুষিত করার চেষ্টা করা হয়। বারবার ভাষার ওপর আক্রমণ এসেছে। কিন্তু সবগুলো আক্রমণই প্রতিহত হয়েছে। এসব বাধা জয় করেই আমরা বাংলা ভাষা পেয়েছি।’

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষার মর্যাদারক্ষায় যারা রক্ত দিয়েছেন তাদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইউনেস্কো বাংলা ভাষার সম্মানে ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি দিয়েছে। বর্তমানে বিভিন্ন দেশের মাতৃভাষা হারিয়ে যাচ্ছে। এ মাতৃভাষা যেন হারিয়ে না যায়, তার জন্য আমরা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট গড়ার কাজ শুরু করি। বিশ্বের বিভিন্ন ভাষা নিয়ে গবেষণা করা হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে বাংলায় ভাষণ দিয়েছিলেন। আমিও যতবার ভাষণ দিয়েছি, ততবারই বাংলায় দিয়েছি।’
সাহিত্য মানুষকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করতে শেখায় এবং মানুষকে সমৃদ্ধ করে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, যে দেশের ভাষা যত সমৃদ্ধ, সে দেশের মানুষ তত এগিয়ে। বাংলাদেশিরা কারও কাছে মাথা নত করে না। বাংলা ভাষা আমাদের আত্মপরিচয়ের ঠিকানা। উপমহাদেশে একমাত্র ভাষাভিত্তিক রাষ্ট্র এ বাংলাদেশই।

বাংলা সাহিত্যের মর্যাদা ও সম্মান বিশ্ব দরবারে বেড়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের সাহিত্য আগের চেয়ে আরও গতিশীল ও সহজ হয়েছে। আজকের এ আয়োজন বাংলা সাহিত্যকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরবে। যারা বাংলায় সাহিত্যচর্চা করছেন তাদের একত্রে করার এ চেষ্টাকে আমি সাধুবাদ জানাই।’

‘বিশ্বমানব হবি যদি কায়মনে বাঙালি হ’ শীর্ষক স্লোগানে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে বসছে তিন দিনব্যাপী এ সাহিত্য সম্মেলন। এতে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশের ২২৫ জন শিল্পী-সাহিত্যিক কবি-লেখক-সাহিত্যিক-সমালোচক অংশ নিচ্ছেন। সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেবেন ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *