191912

ট্রাম্প মুখ বন্ধ রাখতে পর্ন তারকাকে টাকা দিয়েছিলেন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সাবেক এক পর্ন তারকার মুখে কুলুপ আঁটার জন্য টাকা দিয়েছিলেন বলে খবর বেরিয়েছে। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল জানাচ্ছে, ‘স্টর্মি ড্যানিয়েলস’ ছদ্মনামের ওই পর্ন তারকার মুখ বন্ধ করতে ১ লাখ ৩০ হাজার ডলার ঢালতে হয়েছিল ট্রাম্পকে।

২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ওই অর্থ লেনদেনের বিষয়টি দেখভাল করেন ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের আইনজীবী মাইকেল কোহেন। ওই পর্ন তারকার আসল নাম স্টেফ্যানি ক্লিফোর্ড বলে জানা গেছে।
ক্লিফোর্ড অভিযোগ করেন, ২০০৬ সালের জুলাইয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে ওই সাক্ষাৎ অনুষ্ঠিত হয়। এর এক বছর আগেই ট্রাম্প তৃতীয় স্ত্রী মেলানিয়ার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। ক্লিফোর্ড বলেন, নেভাদায় লেক তাহোয়ের একটি সেলিব্রিটি গলফ টুর্নামেন্টে তাদের দেখা হয়।

তবে বরাবরের মতো এবারো এ ধরনের অভিযোগ অস্বীকার করেছে হোয়াইট হাউজ। হোয়াইট হাউজের একজন কর্মকর্তা বলেছেন, এগুলো পুরনো, চর্বিত বিষয়, যেগুলো নির্বাচনে আগে ছাপা হয়েছিল। তখনো প্রকাশিত ওই রিপোর্টগুলো অস্বীকার করা হয়েছিল।

তবে ওই কর্মকর্তা ক্লিফোর্ডের সঙ্গে চুক্তির ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। এদিকে আইনজীবী কোহেন বলেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আরো একবার জোরালোভাবে মিস ড্যানিয়েলসের সঙ্গে এ ধরনের কোনো ঘটনার বিষয় অস্বীকার করেছে।
এর আগে ডজন খানেকের বেশি নারী ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন অসদাচরণ বা হয়রানির অভিযোগ আনেন। কিন্তু প্রেসিডেন্ট বরাবরই তাদের মিথ্যুক করে দাবি করে এসেছেন।

আইনজীবী কোহেন আরো বলেন, এই নিয়ে দ্বিতীয়বার আপনারা আমার মক্কেলের বিরুদ্ধে অপ্রাসঙ্গিক অভিযোগ তুললেন। আপনারা এক বছরের বেশি সময় ধরে এ ধরনের মিথ্যা গল্প বলে যাচ্ছেন। যদিও ২০১১ সাল থেকে সব স্টেকহোল্ডাররা এ ধরনের দাবি অস্বীকার করে যাচ্ছে।

২০১৬ সালে এবিসি টেলিভিশনের ‘গুড মর্নিং আমেরিকা’ শোতে হাজির হওয়ার কথা ছিল ৩৮ বছর বয়সী ক্লিফোর্ডের।
এদিকে ক্লিফোর্ডের সই করা একটি বিবৃতি সংবাদ মাধ্যমে দিয়েছেন কোহেন। সেখানে বলা হচ্ছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে ক্লিফোর্ডের কোনো ধরনের ‘যৌন বা রোমান্টিক সম্পর্ক’ ছিল না।
ওই বিবৃতিতে ক্লিফোর্ডকে উদ্ধৃতি করে বলা হয়, গুজব ছড়িয়েছে যে আমি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছ থেকে মুখ বন্ধ রাখার জন্য টাকা নিয়েছি। এ ধরনের খবর পুরোটাই মিথ্যা।

তবে এই আর্থিক লেনদেন ক্লিফোর্ডের আইনজীবী কিথ ডেভিডসনের মাধ্যমে হয়েছিল বলে জানাচ্ছে বিভিন্ন গণমাধ্যম। তবে ডেভিডসন বলেন, ড্যানিয়েলস আগে আমার মক্কেল ছিলেন। আমার মক্কেলের আইনি বিষয় নিয়ে আমি কোনো মন্তব্য করতে পারবো না।
যে মাসে ওই চুক্তি হয়েছিল ওই মাসেই ওয়াশিংটন পোস্ট একটি ভিডিও প্রকাশ করে। যেখানে নারীদের যৌন হয়রানির বিষয়ে গর্ব করতে শোনা যায় ট্রাম্পকে। তখন ট্রাম্প ওই ভিডিওকে ‘লকার রুম টক’ বলে উড়িয়ে দেন।

২০০৬ সালে নেভাদায় ওই টুর্নামেন্ট চলাকালীন সময়ে ক্লিফোর্ড বিশ্বের শীর্ষ পর্ন তারকা ছিলেন। ২০১৬ সালের অক্টোবরে একই ধরনের অভিযোগ করেন আরেক অ্যাডাল্ট-ফিল্ম স্টার জেসিকা ড্রেক। তিনিও অভিযোগ করেন, ২০০৬ সালে ওই সেলিব্রেটি গলফ টুর্নামেন্ট চলাকালে ট্রাম্প তাকেসহ আরো দুই নারীকে তাদের বিনা অনুমতিতে চুমো দেয়।
তবে তার মুখ বন্ধ রাখার জন্য ট্রাম্পের কাছ থেকে তিনি কোনো টাকা পাননি বলেও জানিয়েছেন জেসিকা।
স্টেফ্যানি ক্লিফোর্ড প্রায় ১শ ৫০টি পর্ন ফিল্মে কাজ করেছেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘ডার্টি ডিডস’, ‘নিস্ফোস’ ও ‘গুড উইল হাম্পিং’।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *