185295

কার সঙ্গে মিলনের পর অভিশাপে পাথর হয়ে গিয়েছিলেন সুন্দরী অহল্যা?

রাণে অহল্যা এক বহু আলোচিত চরিত্র। গৌতমের অভিশাপে নাকি পাথর হয়ে যান অহল্যা। কারণ, ইন্দ্র তাঁকে সম্ভোগ করেছিলেন। পরে ভগবান শ্রীরামের স্পর্শে শাপমুক্তি ঘটে তাঁর। কিন্তু কিভাবে সুন্দরী অহল্যার জন্ম হল জানেন?

একসময় ব্রহ্মা নিজের খেয়ালে একাধিক সুন্দরী নারী তৈরি করেছিলেন। তাঁর মধ্যে অহল্যার প্রতি আকৃষ্ট হন অনেক দেবতাই। অসুরেরাও তাঁর প্রতি আকৃষ্ট ছিলেন। কিন্তু ব্রহ্মা অহল্যার দায়িত্ব দেওয়ার জন্য উপযুক্ত পাত্র পাচ্ছিলেন না। অহল্যা যৌবনা হয়ে ওঠেন। আশীর্বাদ ছিল তিনি সবসময় ষোড়শীর মতই দেখতে থাকবেন। অবশেষে ব্রহ্মা নিদান দিলেন, কেউ যদি পুরো পৃথিবী ঘুরে আসতে পারেন, তাহলেই তাঁর হাতে তুলে দেওয়া হবে অহল্যাকে। শুনেই দেবতারা রওনা হলেন পৃথিবী ভ্রমণে। আর অন্যদিকে, আশ্রমে গিয়ে মহর্ষি গৌতম দেখলেন জন্ম হয়েছে এক কামধেনুর। সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ জানাতে ওই শিশু কামধেনু আর শিবলিঙ্গের চারপাশে একপাক ঘুরে এলেন তিনি। ব্রহ্মা তাঁকে বললেন, যে কামধেনুর জন্ম হয়েছে সেই আসলে একটা গোটা পৃথিবীর সমান। তাই তাঁর হাতেই অহল্যাকে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি।

কিন্তু অহল্যার প্রতি বিশেষ আকৃষ্ট ছিলেন ইন্দ্র। তাই মহর্ষি গৌতমের সঙ্গে বিয়ে হলেও পিছু ছাড়লেন না তিনি। মিথিলার কাছেই এক উপবনে নিজের আশ্রমে গৌতম অহল্যাকে নিয়ে বাস করতেন। একদিন মুনির অনুপস্থিতির সুযোগে, তাঁর বেশ ধরে এসে ইন্দ্র অহল্যার সঙ্গে সঙ্গম প্রার্থনা করেন।

পূজা করছিলেন অহল্যা তিনি প্রতীক্ষা করতে বললেও, তার শাপের ভয়ে মিলনে রাজি হন। অহল্যার সঙ্গে যৌন মিলন করার পর ইন্দ্র পালাতে যান। কিন্তু, পালাতে গিয়ে ইন্দ্র ধরা পড়ে যান গৌতমের কাছে। গৌতম স্নান করে তখন সমিধকুশ নিয়ে ফিরছিলেন। ইন্দ্রকে তিনি অভিশাপ দেন যে তাঁকে বৃষণ অর্থাৎ অণ্ডকোষহীন হতে হবে।[ এরপর শাপ দেন অহল্যাকেও। বলেন, তাঁকে বহু সহস্র বছর “বায়ুভক্ষা, নিরাহারা, ভস্মশায়িনী, তপ্যন্তী, প্রস্তরবৎ ও অদৃশ্যা” হয়ে থাকতে হবে। রাম তাঁকে স্পর্শ করলে তবেই তিনি পবিত্র হবেন ও স্বামীর সঙ্গে পুনরায় মিলিত হবেন। এরপরই অহল্যা পাথর হয়ে যান।

এরপর গৌতম পর্বতের চূড়ায় তপস্যায় মগ্ন হন। মিথিলার পথে এই উপাখ্যান শুনতে শুনতে রাম ও লক্ষ্মণ মুনির আশ্রমে এসে উপস্থিত হন। অহল্যার শাপমুক্তি ঘটে। তিনি ভস্মশয্যা থেকে উঠে এসে অতিথি সৎকার করে। রাম ও লক্ষ্মণও তাঁর পদধূলি নেন। দেবতারা আকাশ থেকে পুষ্পবৃষ্টি ঘটান ও অহল্যার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন। গৌতম ঋষি ফিরে আসেন এবং রামচন্দ্রকে পূজা করে স্ত্রীকে নিয়ে তপস্যা করতে চলে যান।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *